দিবা-রাত্রে ৫ ওয়াক্ত নামায ফরয। যথাঃ ফজর, যহোর, আসর, মাগরিব ও ইশা। 

ফজরের নামাযের সময়ঃ সুবহে সাদিক হইতে সূর্যোদয়ের পূর্ব পর্যন্ত। সূর্যোদয়ের পূর্বে, পূর্ব আকাশের কিনারায় উত্তর দক্ষিণে যতক্ষণ পর্যন্ত বিস্তৃত সাদা রেখা দেখা যায়, ঐ সময়কে সুবহে সাদিক বলে। |

যহোরের নামাযের সময়ঃ দ্বিপ্রহরের সূর্য পশ্চিমে ঢলিয়া পড়ার পর হইতে প্রত্যেক বস্তুর ছায়া আসল ছায়া বাদ দিয়া উহার দিগুণ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত জোহরের নামাযের সময়। কিন্তু ১ গুণের মধ্যে পড়া উত্তম। শুক্রবার দিন যহোরের নামাযের পরিবর্তে জামাতের সহিত দুই রাকাত ফরয নামায মসজিদে পড়াকে জুমার নামায বলে। 

আসরের নামাযের সময়ঃ যহোরের নামাযের সময় শেষ হওয়ার পর সূর্য অস্ত যাওয়ার ২০ মিনিট পূর্ব পর্যন্ত আসরের নামাযের সময় তারপর মাকরূহ্ ওয়াক্ত আসিয়া যায়। 

মাগরিবের নামাযের সময়ঃ সূর্য সম্পূর্ণভাবে অস্ত যাওয়ার পর হইতে পশ্চিম আকাশে লাল রং থাকা পর্যন্ত মাগরিবের নামাযের সময় । তবে, সূর্য অস্ত যাওয়ার সাথে সাথে পড়িয়া লওয়া উত্তম। 

ইশার নামাযের সময়ঃ মাগরিবের নামাযের দেড় ঘণ্টা পর হইতে সুবহে সাদিকের পূর্ব পর্যন্ত এক তৃতীয়াংশের ভিতরে আদায় করা মুস্তাহাব। তবে, অর্ধেক রাত্র পর্যন্ত জায়েয, তারপর মাকরূহ্। 

বিতরের নামাযের সময়ঃ ইশার ফরয আদায়ের পরক্ষণেই বিতরের নামাযের সময়। কিন্তু ইশার নামায আদায় ব্যতিরেকে বিতরের নামায হইবে না । 

ফজরঃ  প্রথমে সুন্নত ২ রাকাত, ফরয ২ রাকাত, মোট ৪ রাকাত। 

যহোরঃ প্রথমে সুন্নত ৪ রাকাত, ফরয ৪ রাকাত, পরে সুন্নত ২ রাকাত এবং নফল ২ রাকাত, মোট ১২ রাকাত । 

আসরঃ প্রথমে নফল ৪ রাকাত, ফরয ৪ রাকাত, মোট ৮ রাকাত। 

মাগরিবঃ ফরয ৩ রাকাত, সুন্নত ২ রাকাত, নফল ৬ রাকাত, মোট ১১ রাকাত। 

ইশাঃ প্রথমে নফল ৪ রাকাত, ফরয ৪ রাকাত, পরে সুন্নত ২ রাকাত, নফল ২ রাকাত, মোট ১২ রাকাত। (ফাতাওয়া আলমগীরী ১:১১২) 

বিতেরঃ তিন রাকাত ওয়াজিব, পরে ২ রাকাত নফল পড়া উত্তম। প্রকাশ থাকে যে বিতেরের নামাযের তৃতীয় রাকাতে রুকুর আগে কেরাত পড়ার পর তাকবীর বলিয়া হাত বাঁধা অবস্থায় দু’আয়ে কুনূত পড়া ওয়াজিব। (ফাতওয়া আলমগীরী ১:১১০) 

জুমুআঃ প্রথমে সুন্নত ৪ রাকাত, ফরয ২ রাকাত পরে সুন্নত ৪ রাকাত এবং নফল ২ রাকাত, মোট ১২ রাকাত। (ফাতাওয়া আলমগীরী ১: ১৪৪) 

তারাবীহঃ ইহা শুধু রমযান মাসে এশার নামাযের পরে বিতেরের পূর্বে আদায় করিতে হয় । ইহা সুন্নতে মুআক্কাদাহ, মোট ২০ রাকাত। ২ রাকাত ২ রাকাত করে ৪ রাকাত পড়ার পর কিছু সময় আরাম করা মুস্তাহাব। (ফাতাওয়ায়ে আলমগীরী ১: ১১৫) 

আযান, ইকামত এবং তাসবীহ, তাশাহহুদ ইত্যাদি